সরকারের চরম বিপর্যয় ঘটাতে নতুন কৌশলে বিএনপি

সদ্য অনুষ্ঠিত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনগণ ভোট বর্জন করেছে বলে দাবি বিএনপিসহ সমমনা দলগুলোর। এজন্য জনগণকে ধন্যবাদ জানিয়ে লিফলেট বিতরণ করেছেন দলগুলোর নেতাকর্মীরা। বুধবার রাজধানীসহ সারা দেশে এ কর্মসূচি পালন করেন তারা। এ সময় নেতারা বলেন, ২০১৪ ও ২০১৮ সালের মতো আরেকটি ‘অবৈধ’ সরকার গঠন করছে আওয়ামী লীগ। এ অবৈধ সরকারের অবৈধ সংসদে জনগণের সাড়া মেলেনি। ‘একতরফা, ডামি’ নির্বাচন করে সরকার গঠন করলেও বেশিদিন ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে পারবে না। শিগগিরই তাদের পতন ঘটবে।

বুধবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাব এলাকায় জাতীয় মৎস্যজীবী দলের উদ্যোগে ‘ভোট বর্জনের জন্য’ জনগণকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য জয়নুল আবদিন ফারুক। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ডামি নির্বাচনে জনগণ অংশগ্রহণ করেনি। এ নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি, গ্রহণযোগ্য হয়নি। শুধু তাই নয়, জনগণের অংশগ্রহণবিহীন এ নির্বাচন বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশগুলোও গ্রহণ করেনি। এটা অবৈধ সরকারের অবৈধ সংসদ।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে ৭ জানুয়ারি ‘লজ্জাজনক ঘটনা’ ঘটে গেছে মন্তব্য করে ফারুক বলেন, জনগণের অনুপস্থিতিতে ভোটারবিহীন নির্বাচনে তল্পিবাহক প্রধান নির্বাচন কমিশনার ৪০ শতাংশ ভোট পড়েছে বলে যে ঘোষণা দিয়েছেন, আমরা তথ্য-উপাত্ত দেখে বাংলাদেশের সব মিডিয়া ও গণমাধ্যমে যেটা দেখেছি, ২ থেকে ৪ পারসেন্টের বেশি ভোট পড়েনি।

নতুন সংসদ-সদস্যদের শপথ জনগণ ‘গ্রহণ করবে না’ জানিয়ে তিনি বলেন, ভোট বর্জনে জনগণকে ফুলেল শুভেচ্ছা। অবৈধ নির্বাচন জনগণ বর্জন করেছে। এজন্য জনগণকে ধন্যবাদ জানিয়ে তাদের হাতে গোলাপ ফুল তুলে দিচ্ছি।

সরকারের উদ্দেশে ফারুক বলেন, আপনারা একটা ভুয়া ভোটারবিহীন নির্বাচন করেছেন। এরশাদও ’৮৬ ও ’৮৮ সালে নির্বাচন করেছিল। সেই নির্বাচনে জনগণ অংশগ্রহণ করেনি। আপনারা ক্ষমতায় ছিলেন জোর করে, এবার ২০২৪ সালের ৭ জানুয়ারি তল্পিবাহক নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে যে নির্বাচন আপনারা করেছেন ভোটারবিহীন, সেই সরকার আপনারা পরিচালনা করতে পারবেন না। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক রফিকুল ইসলাম মাহতাবসহ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। গুলশানে লিফলেট বিতরণকালে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, সরকার একতরফা প্রতারণার নির্বাচন করে গোটা জাতিকে ধোঁকা দিয়েছে।

জনগণ নির্বাচন বর্জন ও প্রত্যাখ্যান করে সরকারকে লাল কার্ড দেখিয়েছেন। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. রফিকুল ইসলাম, তাঁতীদলের আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ, মৎস্যজীবী দলের সদস্যসচিব আব্দুর রহিম, যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি জাকির হোসেন সিদ্দিকী, সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক মেহবুব মাসুম শান্ত প্রমুখ।

দুপুরে উত্তরা এলাকায় লিফলেট বিতরণ করে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল। উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহসভাপতি ফখরুল ইসলাম রবিন, আরিফ হাওলাদার, রফিকুল ইসলাম, মনির আলম চৌধুরী, রাসেল মাহমুদ, এমজি মাসুম রাসেল, ফরহাদ উদ্দিন, স্বেচ্ছাসেবক দল ঢাকা মহানগর উত্তরের সাবেক সভাপতি গাজী রেজওয়ানুল হক রিয়াজ, কেন্দ্রীয় সংসদের যুগ্মসম্পাদক কাজী মোখতার হোসাইন এসএম কবির, মো. জসিম উদ্দীন, মোহাম্মদ উল্লাহ চৌধুরী ফয়সাল প্রমুখ। মালিবাগে লিফলেট বিতরণ করেছেন যুবদলের নেতাকর্মীরা।

ফকিরাপুলে লিফলেট বিতরণ করেছে ছাত্রদল। উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সিনিয়র যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মো. রাকিবুল ইসলাম রাকিব, ছাত্রনেতা মো. অলিউজ্জামান সোহেল, মাকসুদা রিমা, মহিউদ্দিন রুবেল, ইব্রাহীম কার্দী, শাহাদাত হোসেন মানিক প্রমুখ। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় লিফলেট ও মিছিল করেছেন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপির নেতাকর্মীরা। পৃথকভাবে কর্মসূচি পালন করেছে সমমনা অন্য দলগুলো। এদিকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় লিফলেট বিতরণ করেছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের নেতাকর্মীরা পৃথকভাবে এ কর্মসূচি পালন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *