Home / সর্বশেষ / লাখ লাখ টাকা গচ্চা যাচ্ছে শুধু বিমান টিকিটেই

লাখ লাখ টাকা গচ্চা যাচ্ছে শুধু বিমান টিকিটেই

খরচের লাগাম টানতে বিদেশে খেলতে যাওয়া জাতীয় ক্রিকেট দলের বহর ছোট রাখার সিদ্ধান্ত হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর থেকেই। ফলে ওই সফরে বিদেশি মুদ্রার হয়েছে কিছুটা সাশ্রয়।

সাদা চোখে মনে হতেই পারে, প্রশংসা পাওয়ার মতো কাজ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তবে পেছন দিয়ে যে লাখ লাখ টাকা বেরিয়ে যাচ্ছে, সেদিকে কারও ভ্রুক্ষেপ নেই।

বিসিবির কৃচ্ছ্র সাধনের নমুনা অনেকটা এ রকমই। দেরিতে দল ঘোষণা এবং ঘন ঘন খেলোয়াড় বদলের কারণে উড়োজাহাজের টিকিট কেনা ও বাতিল করায় মোটা অঙ্ক গচ্চা দিতে হচ্ছে বিসিবিকে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে কিছু সিদ্ধান্ত নিতে দেরি করায় ৪ লাখ টাকার টিকিট ১৩ লাখ টাকা দিয়ে কিনতে হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জিম্বাবুয়ে সফরেও একাধিক টিকিট বদল ও বাতিল করায় মোটা অঙ্কের টাকা অপচয় করতে যাচ্ছে বিসিবি।

বাংলাদেশ দলের জিম্বাবুয়ে সফর নিশ্চিত হয়েছে অনেক আগেই। বিসিবি পরিকল্পিতভাবে এগোলে এক মাস আগেই দল চূড়ান্ত করে সফরের কার্যক্রম শেষ করা যেত বলে মনে করেন বোর্ড কর্মকর্তারা।

অথচ জিম্বাবুয়ে সফরের দল ঘোষণা করা হলো খেলোয়াড়দের উড়োজাহাজে ওঠার মাত্র চার দিন আগে। কয়েকজন ক্রিকেটার বাদ পড়ায় টিকিট বাতিল করতে হয়েছে ক্ষতিপূরণ দিয়ে।

একাধিক টিকিট শেষ মুহূর্তে ক্রয় করায় দুই-তিন গুণ টাকা লাগছে। সবচেয়ে বড় কথা, ক্রিকেটার ও কোচিং স্টাফের কারও ভিসা হয়নি গতকাল পর্যন্ত। নির্ধারিত সময়ে যেতে হলে আজকালের মধ্যে ভিসা পেতে হবে জিম্বাবুয়ে থেকে।

এ ব্যাপারে বিসিবি ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুসের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘যেসব কারণে বেশি দাম দিয়ে টিকিট কিনতে হচ্ছে, সেগুলো চিহ্নিত করে সমাধান করতে বলা হয়েছে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে দলের সদস্য খুব একটা বদল করা হয়নি। জিম্বাবুয়ে সফরের জন্য খেলোয়াড় তালিকা আগেই ঠিক করা ছিল; একজনকে শুধু পরে নেওয়া হয়েছে। কোচিং স্টাফকেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, রুট পরিবর্তন করা যাবে না। আমরা চেষ্টা করছি সাশ্রয়ী হতে।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজে তাইজুল ইসলাম, মেহেদী হাসান মিরাজ, এনামুল হক বিজয়, এবাদত হোসেনের টিকিট বদল করতে হয়েছে ক্ষতিপূরণ দিয়ে। চোটের কারণে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের টিকিট বাতিল করা,

ইয়াসির আলী রাব্বিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেকে দেশে ফিরিয়ে আনতে বিসিবির কোষাগার থেকে বেরিয়ে গেছে অনেক টাকা। তেমনি জিম্বাবুয়ে সফরে মুশফিকুর রহিমকে টি২০ ও পেসার এবাদত হোসেনকে ওয়ানডের প্রাথমিক দলে রেখে টিকিট করা হয়েছিল।

দল ঘোষণা করতে দেরি হওয়ায় একজনের টিকিট বদল এবং অন্যজনেরটা বাতিল করতে হয়েছে। পারভেজ হোসেন ইমনের টিকিট কাটতে হয়েছে নতুন করে। ফলে চার লাখ টাকার টিকিট কিনতে হয়েছে তিন গুণ চড়া দামে; সঙ্গে ভিসা জটিলতা তো আছেই। কারণ, ভিসা করাচ্ছে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড।

বিসিবির এক কর্মকর্তা নাম গোপন রাখার শর্তে বলেন, বৈশ্বিক মূল্যস্ম্ফীতির কথা মাথায় রেখে দল গোছানোর কাজ তো এক মাস আগেই করা যায়। জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের নিয়ে না হয় কিছুটা অনিশ্চয়তা থাকে, ‘এ’ দলের ক্ষেত্রে কেন বিলম্বে খেলোয়াড় নিতে হচ্ছে? ২৯ জুলাই ‘এ’ দলের উইন্ডিজ সফর ঠিক করা হলেও এখনও ইংল্যান্ডের ট্রানজিট ভিসা হয়নি সাতজনের।

এ ক্ষেত্রেও খেলোয়াড়দের টিকিট বদল করতে হতে পারে, যেটা বিসিবির জন্য মোটা অঙ্কের আর্থিক ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে বলে মনে করা হচ্ছে। সত্যিই, এদিকটায় একটু সচেতন হলে অনেক টাকা বেঁচে যেত বিসিবির।

Check Also

যে কৃষক ভালো, তার ফসলও ভালো: মাহিয়া মাহি

আজ চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ (গোমস্তাপুর, নাচোল, ভোলাহাট) আসনে মুহা. জিয়াউর …

Leave a Reply

Your email address will not be published.