Home / সর্বশেষ / মেয়ে হয়ে ছেলে সেজে ক্রিকেট খেলা শেফালীর হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া গল্প..

মেয়ে হয়ে ছেলে সেজে ক্রিকেট খেলা শেফালীর হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া গল্প..

ভারতের হয়ে সবচেয়ে কম বয়সে জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পেয়েই বাজিমাত করছেন মাত্র ১৭ বছর বয়সী একাদশ শ্রেণিতে পড়াশোনা করা শেফালী ভার্মা।

ঘরোয়া ক্রিকেটে দুর্দান্ত পারফর্ম করে দলে আসার পর উঠে এসেছে তার জীবনের উত্থানের দারুণ এক গল্প। শচীন টেন্ডুলকারকে দেখে মেয়ের মনে ইচ্ছা জাগলো ক্রিকেটার হওয়ার।

ক্রিকেট পাগল বাবাও তাতে সায় দিলেন। মেয়েকে ক্রিকেট একাডেমিতে ভর্তি করার জন্য বেরিয়ে পড়লেন শীঘ্রই। তবে স্থানীয় কোনো একাডেমিই মেয়েকে ভর্তি করতে নারাজ।

কারণ সেসময় হরিয়ানার রোহতাক জেলায় মেয়েদের জন্য কোনো ক্রিকেট একাডেমিই ছিল না। আর বাবার শত অনুনয় সত্ত্বেও উত্তরে স্রেফ নাই বলে গিয়েছিল একাডেমিগুলো।

ফলে মেয়ের স্বপ্ন পূরণে বাবা বেছে নিলেন কষ্টদায়ক এক পথ। যেহেতু মেয়ে হওয়ার কারণে সন্তানকে কেউই নিতে চাচ্ছিল না, তাই বাবা হয়েও মেয়েকে নির্দেশ দিলেন চুল কেটে ছোট করে এবং অন্যসব সাজগোজ করে ছেলে হয়ে যেতে।

এবার মেয়েকে ভর্তি করল স্থানীয় এক একাডেমি। সেখান থেকে শুরু। মেয়ে হয়েও সেখানে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে ছেলেদের সমান তালে খেলতে হতো।

ব্যাপারটি মোটেও সহজ ছিল না। একটা সময় তাদের সেই একাডেমিও মেয়েদের শাখা খোলার সিদ্ধান্ত নিলে, মেয়েটি নিজের আসল পরিচয় প্রকাশ করে।

এভাবে চলতে চলতেই হরিয়ানার শেফালী ভার্মা আজ দেশটির জাতীয় নারি দলের সর্বকনিষ্ঠ ক্রিকেটার। সম্প্রতি বিশ্বকাপে দারুণ পারফর্ম করে কুঁড়িয়েছেন ১৭ বছর বয়সী এই মেয়ে।

ছেলে হয়ে খেলা শেখা শেফালি আজ তার স্বদেশের ক্রিকেটের ভবিষ্যত বলে বিবেচিত। নিজের ক্রিকেট ও স্বপ্ন নিয়ে শেফালি বলেন, ‘শচীন স্যারকে দেখতে স্টেডিয়ামের ভেতরে যত মানুষ বাইরেও সে পরিমাণই ছিল।

তখনই বুঝতে পারি ভারতের ক্রিকেটার হওয়া কত বড় ব্যাপার। বিশেষ করে শচীন স্যারের মতো হতে পারলে। ওই দিনটা জীবনে কখনো ভুলব না। আমার ক্রিকেট ক্যারিয়ার শুরু হয়েছে ওখান থেকে।’

Check Also

যে কৃষক ভালো, তার ফসলও ভালো: মাহিয়া মাহি

আজ চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ (গোমস্তাপুর, নাচোল, ভোলাহাট) আসনে মুহা. জিয়াউর …

Leave a Reply

Your email address will not be published.