Home / খেলার খবর / মুস্তাফিজকে কৌশলে সরিয়ে দিতে চান জাতীয় দলের নতুন ‘টিম ডিরেক্টর’

মুস্তাফিজকে কৌশলে সরিয়ে দিতে চান জাতীয় দলের নতুন ‘টিম ডিরেক্টর’

দেশের ক্রিকেটের তিন প্রজন্ম নিয়ে আলোচনা। এক প্রজন্ম ক্রিকেট খেলেছেন মনের আনন্দে, দেশে ক্রিকেট জনপ্রিয় করেছেন। মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়েছেন। সেই প্রজন্ম খালেদ মাহমুদ সুজনদের।

তাদের হাত ধরেই পরবর্তীতে এসেছেন সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল। খালেদ মাহমুদরা মাঠে নেমেছেন লড়াইয়ের জন্য। তামিম, সাকিবরা মাঠে নেমেছেন জেতার জন্য।

ঠিক পরের প্রজন্ম মোস্তাফিজুর রহমানরা শুধু জিতেই ক্ষান্ত নন, প্রতিপক্ষকে দুমড়ে-মুচড়ে দেন। তিন প্রজন্মই দেশের ক্রিকেটের নিউক্লিয়াস যারা প্রত্যেকেই এগিয়ে নিচ্ছেন। খালেদ মাহমুদরা অবসরে গিয়ে হয়েছেন ক্রিকেট কর্তা।

সাকিব, তামিমরা সেই পথেই হাঁটছেন। কিন্তু মোস্তাফিজের কাছে আছে অফুরন্ত সময়। অথচ সাকিব, তামিমদের জন্য এখন যে সুবিধা খালেদ মাহমুদরা দিচ্ছেন তা ভোগ করছেন মোস্তাফিজ!

ক্রিকেট ক্যারিয়ার দীর্ঘ করার ইচ্ছায় পছন্দের ফরম্যাটে খেলার সুযোগ দিচ্ছে বিসিবি। সেজন্য তামিম টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন।

সাকিব তিন ফরম্যাটে চুক্তি করলেও বিশেষ প্রয়োজনে মাঝে-মাঝেই যাচ্ছেন ছুটিতে। বিশেষ করে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) খেলার সময় তাকে পাওয়া যায় না। দেশের খেলা বাদ দিয়ে আইপিএলে খেলার ইতিহাসও আছে।

এজন্য ক্রিকেটারদের আগেভাগেই জানিয়ে দিতে হয় কোন ফরম্যাট তারা খেলবেন, কোন ফরম্যাট খেলবেন না। সাকিব-তামিমদের দেওয়া সেই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে মোস্তাফিজ টেস্ট ক্রিকেটকে না করে দিয়েছেন।

কেন্দ্রীয় চুক্তিতেও লাল বলের ক্রিকেট রাখেননি। কিন্তু ২৬ বছর বয়সী মোস্তাফিজের এখনই টেস্টে অনাগ্রহ। শুধু অনাগ্রই নয় তাকে যেন টেস্টে বিবেচনা করা না হয় সেজন্য নির্বাচকদের কাছেও গিয়েছেন। এখন দেশের খেলা বাদ দিয়ে বাঁহাতি পেসার খেলে বেড়াচ্ছেন আইপিএল।

নিয়মের মধ্যে থেকে মোস্তাফিজ শতভাগ ঠিক থাকলেও এই নিয়মটি তার জন্য প্রযোজ্য নয়। বিশেষ করে সাকিব-তামিমরা যা পারেন, যে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন তা মোস্তাফিজ নিতে পারেন না। তার বয়স, অভিজ্ঞতা সবকিছু বিবেচনায় এমন কথা বলেছেন জাতীয় দলের টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ।

‘পাপন ভাই (নাজমুল হাসান) বলেছিলেন খেলোয়াড়রা যে ফরম্যাট খেলতে চায় এ নিয়ে আলাপ করতে পারে। সেটা সিনিয়র কয়েক খেলোয়াড়ের ক্ষেত্রে কথাটা বলেছেন, সবার ক্ষেত্রে না। এখন যদি জয় বলে আমি ওয়ানডে খেলবো আর টেস্ট খেলবো না,

এটা কি ঠিক হলো নাকি? মোস্তাফিজের আসলে বয়স কত? কয়দিন ধরে খেলে? ও তো সাকিব না, তামিম না, মাশরাফি বা মুশফিক না। যারা এতো বছর ধরে বাংলাদেশকে তিন ফরম্যাটে সার্ভিস দিয়েছে।’

‘দেশের জন্য খেলা জরুরি। ক্রিকেট শুরু হয়েছে টেস্ট দিয়ে। মোস্তাফিজ কেন খেলতে চায় না আমি জানি না। এটা বোর্ডই নির্ধারণ করবে, কাকে কোথায় খেলতে হবে।

আপনি কি অফিসে বলতে পারেন- আমি এই কাজ করবো না, ঐ কাজ করবো? আপনি এখানে কর্মী, আপনি কীভাবে বেছে নেবেন? সভাপতি বলেছিলেন সিনিয়র ক্রিকেটারদের ব্যাপারে।’ – যোগ করেন খালেদ মাহমুদ।

সাকিব-তামিম আর মোস্তাফিজ এক নন, মনে করিয়ে দিয়ে খালেদ মাহমুদ যোগ করেন, ‘সাকিব-তামিমদের বয়স ৩৪-৩৫। তাদের এখন বিরতি প্রয়োজন, তারা এটার যোগ্য। কিন্তু লিটন দাস তো বিশ্রামের যোগ্য না।

লিটন যদি সাকিব-তামিম হতো, বলতাম সেও বিশ্রামের যোগ্য। মোস্তাফিজেরও তাই। তাকে অবশ্যই টেস্ট খেলা উচিৎ। এখন তার পিক টাইম। আমরা তো বলছি না সব টেস্ট খেলো।

আমাদের ১২ জনের একটা ফাস্ট বোলারদের পুল দরকার যারা তিন ফরম্যাটেই পারফর্ম করতে পারবে। একসময় শুনেছিলাম বায়োবাবলের কারণে খেলতে চায় না। তবে আমার মনে হয় না এগুলো কোনো অজুহাত হতে পারে। তাসকিন, শরিফুলরা খেলতে পারলে, তারও খেলা উচিৎ।’

Check Also

দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুটাও তেমন ভালো হয়নি বাংলাদেশ দলের

অ্যান্টিগা টেস্টে প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুটাও তেমন ভালো হয়নি বাংলাদেশ দলের। তবে প্রথম …

Leave a Reply

Your email address will not be published.