Home / খেলার খবর / আন্দ্রে রাসেলের টর্নেডো থামিয়ে রোমাঞ্চকর জয় গুজরাটের

আন্দ্রে রাসেলের টর্নেডো থামিয়ে রোমাঞ্চকর জয় গুজরাটের

শেষ ওভারে বল করতে এসে নিলেন ৪ উইকেট। পরে ব্যাট হাতে দলকে নাটকীয় এক জয়ের স্বপ্ন দেখালেন। যদিও শেষ হাসি হাসতে পারেননি আন্দ্রে রাসেল।

তার টর্নেডো ব্যাটিং থামিয়ে রোমাঞ্চকর এক জয় পেয়েছে গুজরাট টাইটান্স। আইপিএলে আজ (শনিবার) দিনের প্রথম ম্যাচে কলকাতা নাইট রাইডার্সকে ৮ রানে হারিয়েছে হার্দিক পান্ডিয়ার দল। এই জয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে উঠে গেছে গুজরাট।

লক্ষ্য ছিল ১৫৭ রানের। রান তাড়ায় নেমে ১৬ রানের ৩ ব্যাটার স্যাম বিলিংস (৪), সুনিল নারিন (৫) আর নিতিশ রানাকে (২) হারিয়ে বসে কলকাতা। ৩৪ রান উঠতে সাজঘরের পথ ধরেন অধিনায়ক শ্রেয়াস আয়ারও (১৫ বলে ১২)।

মাঝে রিংকু সিং উইকেট আগলে খেললেও ২৮ বলে ৩৫ রানে করে আউট হয়ে যান। একশর আগে (৯৮ রানে) ৬ উইকেট হারিয়ে বলতে গেলে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে কলকাতা।

এমন জায়গায় দাঁড়িয়ে অবিশ্বাস্য ব্যাটিং করেন আন্দ্রে রাসেল। বড় বড় ছক্কায় মাঠ গরম করে শেষ ওভার পর্যন্ত ম্যাচ বাঁচিয়ে রেখেছিলেন তিনি। শেষ ওভারে কলকাতার দরকার ছিল ১৮ রান। আলজেরি জোসেফের প্রথম বলে ছক্কা হাঁকিয়ে কাজটা সহজই করে ফেলেছিলেন রাসেল।

কিন্তু দ্বিতীয় বলটি পুল করে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে বাউন্ডারিতে লুকি ফার্গুসনের দারুণ এক ক্যাচ হন ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার। ২৫ বলে ১ চার আর ৬ ছক্কায় গড়া তার ৪৮ রানের ইনিংসটি থামলে শেষ হয়ে যায় কলকাতার স্বপ্নও।

গুজরাটের পক্ষে দুটি করে উইকেট নেন রশিদ খান, ইয়াশ দয়াল আর মোহাম্মদ শামি। এর আগে হার্দিক পান্ডিয়ার ক্যাপ্টেনস নকে বেশ চ্যালেঞ্জিং একটি পুঁজি পাওয়ার পথে ছিল গুজরাট টাইটান্স। কিন্তু হার্দিক আউট হতেই তালগোল পাকিয়ে ফেলে দলটি।

শেষ ওভারে বল হাতে নিয়ে মাত্র ৫ রান খরচ করে ৪ উইকেট তুলে নেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের পেস বোলিং অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেল। ফলে ৯ উইকেটে ১৫৬ রানে থামে গুজরাট।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো ছিল না গুজরাটের। দলীয় ৮ রানের মাথায়ই সাজঘরের পথ ধরেন শুভমান গিল (৫ বলে ৭)। তবে দ্বিতীয় উইকেটে ঋদ্ধিমান সাহাকে নিয়ে ৫৬ বলে ৭৫ রানের জুটিতে সেই চাপ সামলে নেন হার্দিক পান্ডিয়া।

ঋদ্ধিমান বরাবরের মতো ধীরগতির ছিলেন। ২৫ বলে ২৫ করে আউট হন তিনি। এরপর ডেভিড মালান আর পান্ডিয়া মিলে ৩৫ বলে যোগ করেন ৫০ রান। ২০ বলে ২৭ রানের ইনিংস খেলে মিলার ১৭তম ওভারে ফিরলে ভাঙে এই জুটি।

পরের ওভারে মারকুটে পান্ডিয়াও আউট হয়ে যান। ৪৯ বলে ৪ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় ৬৭ রান করেন গুজরাট অধিনায়ক। আগের ম্যাচে ঝড় তোলা রশিদ খান এবার রানের খাতা খোলার আগেই বিদায় নেন। সবমিলিয়ে ৫ রানে ৪ উইকেট শিকার রাসেলের। এছাড়া ৪ ওভারে ২৪ রান খরচায় ৩টি উইকেট নেন কলকাতার আরেক পেসার টিম সাউদি।

Check Also

দুর্দান্ত খেলেও শেষ মুহুর্তে দুই গোল খেয়ে বিশ্বকাপ শুরু করলো মানের সেনেগাল

বিশ্বকাপে আগে কখনোই গ্রুপপর্বে আফ্রিকার কোন দলের কাছে হারেনি নেদারল্যান্ডস। অন্য দিকে সেনেগালও বিশ্বকাপে দু …

Leave a Reply

Your email address will not be published.